1. kaium.hrd@gmail.com : ময়মনসিংহ লাইভ ডেস্ক : ময়মনসিংহ লাইভ ডেস্ক
সাংবাদিকরা কেন বিচার পান না?
শনিবার, ০২ মার্চ ২০২৪, ১২:২৯ পূর্বাহ্ন

সাংবাদিকরা কেন বিচার পান না?

ময়মনসিংহ লাইভ কর্তৃক প্রকাশিত
  • আপডেট সময় : শুক্রবার, ২ নভেম্বর, ২০১৮

বাংলাদেশে ২০০১ থেকে ২০১৬ পর্যন্ত ১৫ বছরে ২০ জনের বেশি পেশাদার সাংবাদিক নিহত হলেও সেসব ঘটনায় হওয়া মামলার মাত্র ৩টির এখন পর্যন্ত বিচার হয়েছে।

২০১২ সালে নিজেদের বাসায় সাংবাদিক দম্পতি সাগর সারোয়ার ও মেহেরুন সারোয়ার রুনির হত্যার ঘটনার পর ৪৮ ঘন্টার মধ্যে রহস্য উদঘাটনের আশ্বাস দিয়েছিলেন সেসময়কার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাহারা খাতুন। তবে সাড়ে ৬ বছর পার হয়ে গেলেও সে বিচার এখনো পায়নি সাগর-রুনির পরিবার।

নিহতদের পরিবারের সদস্যরা অনেকটা ধরেই নিয়েছেন যে এই ঘটনার বিচার তারা পাবেন না। রুনি’র ভাই এবং মামলার বাদী নওশের রোমানের মতে ৬ বছর পরেও বিচার প্রক্রিয়া শুরু না হওয়ার প্রধান কারণ আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর আন্তরিকতা ও সদিচ্ছার অভাব।

“৬ বছর পর এখনো বিচার প্রক্রিয়া শুরুই হয়নি। আমার কাছে মনে হয় এত আলোচিত একটি ঘটনার সূত্র খুঁজে বের করা আমাদের আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের জন্য খুব একটা কঠিন কাজ নয়।”

রোমান মনে করেন আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর আন্তরিকতার অভাবই বিচারকাজে অগ্রগতি না হওয়ার মূল কারণ।

কিন্তু আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর আন্তরিকতা বা সরকারের রাজনৈতিক সদিচ্ছার অভাবই কী এধরণের ঘটনার বিচারে প্রধান অন্তরায়?

বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সমীক্ষার হিসেব অনুযায়ী বাংলাদেশে ২০০১ থেকে ২০১৬ পর্যন্ত বাংলাদেশে অন্তত ২৩ জন পেশাদার সাংবাদিক নিহত হয়েছেন।

কিন্তু এই ২৩ জনের মধ্যে মাত্র ৩ জনের ক্ষেত্রে মামলার চূড়ান্ত বিচার সম্পন্ন হয়েছে বলে জানান এই বিষয় নিয়ে কাজ করা মানবাধিকারকর্মী তাহমিনা রহমান।

তবে তার মতে, আইনি তদন্তে বা আদালতের বিচারিক প্রক্রিয়ায় দীর্ঘসূত্রিতা শুধু যে সাংবাদিকদের মামলার ক্ষেত্রেই দেখা যায়, সেরকমটা নয়। বাংলাদেশে বিচার বিভাগ অনেকটা প্রথাগতভাবেই দীর্ঘসূত্রিতা বজায় রেখে কার্যক্রম পরিচালনা করে থাকে।

“আদালতে কার্যক্রম চলাকালে বারবারই নতুন করে তারিখ দেয়া হয়। এই তারিখ দেয়ার ক্ষেত্রে কিছু সুস্পষ্ট নিয়ম রয়েছে, যেগুলো অনেকসময়ই মানা হয় না। এটা একটা প্রচলিত প্রথার মত চলছে।”

এছাড়া কোনো বিশেষ মামলার শুনানির সময় আদালতের বিচারক বদলি হলে বা পরিবর্তিত হলে নতুন বিচারক অনেকসময় পুরোনো মামলার কার্যক্রম চালাতে অনীহা প্রকাশ করেন; যে কারণে দীর্ঘসূত্রিতার জটে পরে মামলা।

তাহমিনা রহমান বলেন, “রাজনৈতিক সদিচ্ছার মত একটি অদৃশ্য বিষয়ে গুরুত্ব আরোপ না করে যেসব বিষয়ের পরিবর্তন সম্ভব সেগুলো নিয়ে চিন্তা করা উচিত আমাদের।”

আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ও বিচার ব্যবস্থার সুষ্ঠু প্রতিপালন, আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের মধ্যে বিদ্যমান আইনের নিয়মিত চর্চা এবং তদন্ত ও বিচারকাজে আধুনিক প্রযুক্তির ব্যবহারের মাধ্যমে বিচার ব্যবস্থা আরো কার্যকরভাবে পরিচালিত হতে পারে বলে মনে করেন তাহমিনা রহমান।

নিউজটি শেয়ার করতে নিচের বাটনগুলোতে চাপ দিন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও সংবাদ
Mymensingh-IT-Park-Advert
Advert-370
Advert mymensingh live
©MymensinghLive
প্রযুক্তি সহায়তা: ময়মনসিংহ আইটি পার্ক