1. kaium.hrd@gmail.com : ময়মনসিংহ লাইভ ডেস্ক : ময়মনসিংহ লাইভ ডেস্ক
রাহুল এখনো বাচ্চা!
শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১২:৪২ অপরাহ্ন

রাহুল এখনো বাচ্চা!

ময়মনসিংহ লাইভ কর্তৃক প্রকাশিত
  • আপডেট সময় : বৃহস্পতিবার, ২৮ মার্চ, ২০১৯

ভারতে এখন চলছে নির্বাচনপূর্ব কথার লড়াই। মুখের কথায় সবাই বাজিমাত করে দিতে চাইছে। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি যেমন বুধবার জাতির কৃতিত্ব পুরোটা একাই নিতে চাইলেন, তেমনি বিরোধীরা আবার এর কোনো কৃতিত্বই মোদিকে দিতে রাজি নয়। কয়েকদিন আগে রাহুল মাতিয়েছিলেন কথা দিয়ে। এবার রাহুলকে ‘বাচ্চা’ বলে কটাক্ষ করলেন মমতা ব্যানার্জি। সব মিলিয়ে বেশ সরগরম ভারতের নির্বাচনপূর্ণ সময়টা।

কয়েকদিন আগে মালদার এক সমাবেশে দেয়া বক্তৃতায় দেশের সরকার এবং পশ্চিমবঙ্গের সরকারকে নিশানা করেছিলেন কংগ্রেস সভাপতি। বলেছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি সারাদিন মিথ্যা কথা বলেন আর পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী কথা দেন কিন্তু রাখেন না। রাহুল বলেন, ‘সিপিএমকে সরিয়ে তৃণমূলকে এনে কোনো লাভ হয়নি। আগে পশ্চিমবঙ্গ সরকার একটা সংগঠনের কথা ভেবে চলত এখন চলে একজন ব্যক্তির জন্য’।

মুখ্যমন্ত্রী মমতা রাহুলের সেই কথার জবাব দিয়েছেন চারদিন পর। আসলে জবাব দেননি না বলে বলা যায় পাত্তা দেননি। তার সমালোচনা ব্যাপারে মমতা সর্বোচ্চ এতটুকুই বলেন, রাহুলের যা মনে হয়েছে তিনি বলেছেন। আমি কোনো মন্তব্য করতে চাই না। আর কী বা বলব রাহুল এখনও বাচ্চা ছেলে। সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে তিনি বুঝিয়ে দেন রাহুল গান্ধি কংগ্রেসের সভাপতি হতে পারে, কিন্তু মমতার কাছে এখনো সে সেই ‘বাচ্চা ছেলে’ই। তাই তাকে নেই বলার কিছু নেই মমতার।

জীবনের বড় একটা সময় কংগ্রেসে থাকার কারণে মমতা ব্যানার্জির সাথে বেশ ভালো সখ্যতা ছিল গান্ধি পরিবারের। বিশেষ করে কংগ্রেসের প্রাক্তন সভানেত্রী তথা ইউপিএ চেয়ারপারসন সোনিয়া গান্ধির সঙ্গে মমতার সুসম্পর্কের কথা আলোচনা হত বিভিন্ন সময়েই। কিন্তু কিছুদিন আগে একটা ঘটনায় দুপক্ষের মধ্যে সম্পর্ক কিছুটা খারাপ হয়ে যায়।

বিজেপি বিরোধী দলগুলোর সঙ্গে বৈঠক এবং আম আদমি পার্টির নেতা অরবিন্দ কেজরিওয়ালের ডাকা সভায় যোগ দিতে দিল্লি গিয়েছিলেন মমতা। পার্লামেন্টে তখন বাজেট অধিবেশন চলছে। মমতা সেখানেও যান। প্রায় একই সময় কংগ্রেস সদস্য এবং প্রাক্তন প্রদেশ সভাপতি অধীর চৌধুরি লোকসভায় চিটফান্ড প্রসঙ্গে সরব হন। তৃণমূলের বিরুদ্ধে অভিযোগ আনতে থাকেন।

পরে দেখা হলে সোনিয়ার কাছে এ ব্যাপারে জানতে চান মমতা। সোনিয়া জবাব দেন, রাজ্যস্তরে একে অপরকে আক্রমণ করা সম্পূর্ণ পৃথক বিষয়। তার সঙ্গে অন্য কিছুকে গুলিয়ে ফেলা ঠিক হবে না। তখন জবাবে মমতা বলেছিলেন, ‘ঠিক আছে আমরাও বিষয়টি মনে রাখব’। সেদিন সন্ধ্যাতেই অবশ্য এনসিপি নেতা শরদ পাওয়ারের বাড়িতে মমতার সঙ্গে রাহুলের দেখা হয়। পরে পাশাপাশি বসে সাংবাদিক সম্মেলনও করেন মমতা ও রাহুল।

ভারতে আগামী ১১ এপ্রিল সাধারণ নির্বাচনের ভোটগ্রহণ শুরু হবে। সাত দফায় ভোট গ্রহণ করা হবে। ভোট গণনা হবে ২৩ মে।

নিউজটি শেয়ার করতে নিচের বাটনগুলোতে চাপ দিন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও সংবাদ
Mymensingh-IT-Park-Advert
Advert-370
Advert mymensingh live
©MymensinghLive
প্রযুক্তি সহায়তা: ময়মনসিংহ আইটি পার্ক