1. kaium.hrd@gmail.com : ময়মনসিংহ লাইভ ডেস্ক : ময়মনসিংহ লাইভ ডেস্ক
যেসব দেশের মানুষের কাছে বেশি অস্ত্র
শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১০:০২ অপরাহ্ন

যেসব দেশের মানুষের কাছে বেশি অস্ত্র

ময়মনসিংহ লাইভ কর্তৃক প্রকাশিত
  • আপডেট সময় : মঙ্গলবার, ১৯ মার্চ, ২০১৯

সুইজারল্যান্ডের ‘গ্র্যাজুয়েট ইনস্টিটিউট অব ইন্টারন্যাশনাল অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট স্টাডিজ’-এর এক গবেষণায় দেখা গেছে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ব্যক্তিগতভাবে অস্ত্র বহনের মাথাপিছু হার সবচেয়ে বেশি।

যুক্তরাষ্ট্র
গবেষণা সংস্থাটি বলছে, সারাবিশ্বে আগ্নেয়াস্ত্র বহনের মাথাপিছু হার সবচেয়ে বেশি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে। ২০১৭ সালের এ গবেষণাটি বলছে, যুক্তরাষ্ট্রের মোট জনসংখ্যা ৩২কোটি ৬৪ লাখ ৭৪ হাজার আর মোট ব্যাক্তিগত অস্ত্রের সংখ্যা ৩৯ কোটি ৩৩ লাখ ৪৭ হাজার। সে হিসেবে প্রতিজন একটির বেশি অস্ত্র বহন করছে।

ফকল্যান্ড
ব্যাক্তিগত আগ্নেয়াস্ত্র বহনের দিক থেকে দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে দক্ষিণ আমেরিকার দ্বীপ ফকল্যান্ড। দ্বীপটির মোট জনসংখ্যা তিন হাজার, যার মধ্যে দুই হাজার জনের ব্যাক্তিগত আগ্নেয়াস্ত্র রয়েছে। মাথাপিছু অস্ত্র শতকরা ৬২ দশমিক এক ভাগ।

ইয়েমেন
তালিকায় তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশ ইয়েমেন। দেশটিতে মাথা পিছু আগ্নেয়াস্ত্র ব্যবহারের হার ৫২ দশমিক আট ভাগ।

সার্বিয়া
দক্ষিণ ইউরোপের দেশ সার্বিয়াতে ব্যাক্তিগত আগ্নেয়াস্ত্র ব্যবহারের মাথাপিছু হার ৩৯ দশমিক এক ভাগ।

সবচেয়ে কম তাইওয়ান, ইন্দোনেশিয়ায়
সুইজারল্যান্ডের এ গবেষণা সংস্থাটির তথ্য অনুযায়ী, ব্যাক্তিগত অস্ত্র বহনের হার সবচেয়ে কম তাইওয়ান, ইন্দোনেশিয়াসহ আরো কয়েকটি দেশে। সংস্থাটি বলছে, তাইওয়ান ও ইন্দোনেশিয়াতে ব্যক্তিগত আগ্নেয়াস্ত্র ব্যবহারের মাথাপিছু হার শূন্যের কাছাকাছি। এ তালিকায় আরো রয়েছে নাউরো এবং ভ্যাটিকান সিটি।

বাংলাদেশ
দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে ব্যাক্তিগত আগ্নেয়াস্ত্র বহনের মাথাপিছু হার সবচেয়ে কম বাংলাদেশে। গবেষণা সংস্থাটি বলছে, বাংলাদেশে আগ্নেয়াস্ত্র বহনের মাথাপিছু হার শূন্য দশমিক চার।

পাকিস্তান
পাকিস্তানে আগ্নেয়াস্ত্র বহনের মাথাপিছু হার ২২ দশমিক তিন, যা দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বেশি।

নিউজটি শেয়ার করতে নিচের বাটনগুলোতে চাপ দিন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও সংবাদ
Mymensingh-IT-Park-Advert
Advert-370
Advert mymensingh live
©MymensinghLive
প্রযুক্তি সহায়তা: ময়মনসিংহ আইটি পার্ক