বিদ্যালয় বন্ধ থাকায় রক্ষা পেল শিক্ষার্থীরা

মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার মাধবপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের একটি জীর্ণ ভবনের ছাদের একাংশে পলেস্তার ধ্বসে পড়েছে। স্কুল বন্ধ থাকায় বড় ধরণের দুর্ঘটনা থেকে রক্ষা পেলেন বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা। শুক্রবার (১১ অক্টোবর) দিবাগত রাতে স্কুলের তিনটি কক্ষের ছাদের পলেস্তার ধ্বসে পড়ার ঘটনা ঘটে। ছাদ ধসে পড়ায়  নির্বাচনী পরীক্ষা গ্রহণ করা নিয়ে অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে।

জানা যায়, উপজেলার চা বাগান অধ্যুষিত মাধবপুর ইউনিয়নের একমাত্র উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান মাধবপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে ১৯৯৪-৯৫ অর্থ বছরে একটি দোতলা ভবন নির্মিত হয়। নি¤œমানের ভবনটির নিচ তলায় শিক্ষক শিক্ষার্থীদের জন্য তিনটি কক্ষে পাঠদান ও অফিস হিসাবে ব্যবহৃত হচ্ছে। ভবনটি ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে ওঠার পরও স্কুল কৃর্তপক্ষ সেটি ব্যবহার করছেন। শুক্রবার রাতে ভবনের তিনটি কক্ষের ছাদের ভারী অংশের পলেস্তার ধসে পড়ে।

 পলেস্তাররের বড় বড় ইটের টুকরো চেয়ার-টেবিল ও ফ্লোরে পড়ে আছে। স্কুল বন্ধ থাকায়  শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা বড় ধরণের দুর্ঘটনা থেকে রক্ষা পেয়েছেন বলে দাবী করছেন স্থানীয়রা। কোন ধরনের বিপদ হয়নি।

শনিবার (১২ অক্টোবর) বিকাল সাড়ে ৩টায় বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুস সোবহান অফিস কক্ষের তালা খুলে গিয়ে অফিস কক্ষের ছাদ ধসে পড়ার দৃশ্য দেখতে পান। একইসাথে শিক্ষার্থীদের পাঠদানের দুটি কক্ষ খুললে একই দৃশ্য দেখে হতবম্ভ হয়ে পড়েন। সাথে সাথে ঘটনাটি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তাকে অবহিত করেন। সোমবার থেকে এসএসসি শিক্ষার্থীদের নির্বাচনী পরীক্ষা অনুষ্ঠানের কথা। সেই পরীক্ষা নিয়ে দেখা দিয়েছে অনিশ্চয়তা।

এ ব্যাপারে মাধবপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুস সোবহান বলেন, ধসে পড়া ভবনে ১শত ৫০জন শিক্ষার্থীর আসন বিন্যাস করা হয়েছিল। শারদীয় দুর্গাপূজার কারণে বিদ্যালয়টি বন্ধ থাকায় বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা বড় ধরণের দূর্ঘটনার হাত থেকে রক্ষা পেয়েছেন।

কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আশেকুল হক বিদ্যালয় ভবনের কক্ষের ছাদের পলেস্তার ধ্বসে পড়ার বিষয়ে সরেজমিন তদন্ত করে দেখবেন বলে জানান।