1. kaium.hrd@gmail.com : ময়মনসিংহ লাইভ ডেস্ক : ময়মনসিংহ লাইভ ডেস্ক
ডাকসুতে ভিপি নুরু, জিএস ছাত্রলীগের রাব্বানী
রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৪:৪৫ অপরাহ্ন

ডাকসুতে ভিপি নুরু, জিএস ছাত্রলীগের রাব্বানী

ময়মনসিংহ লাইভ কর্তৃক প্রকাশিত
  • আপডেট সময় : মঙ্গলবার, ১২ মার্চ, ২০১৯

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র সংসদ নির্বাচনে ভিপি পদে জয়ী হয়েছেন কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের নেতা নূরুল হক নূর। নির্বাচনে বেশির ক্ষমতাসীন দল সমর্থিত ছাত্রলীগ জয়ী হলেও ভিপি পদটি ভাগ পদে চমক দেখা দিয়েছে।

সরকারি চাকরিতে কোটা সংস্কারের দাবিতে গত বছর বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ ব্যানারে জোরাল আন্দোলনের নেতৃত্ব দিয়ে পরিচিত পান এই ফোরামের যুগ্ম আহ্বায়ক নূর।

তারপর হামলা, মামলা, নির্যাতনের সয়ে ইংরেজি বিভাগের এই ছাত্র এবার শিক্ষার্থীদের প্রতিনিধি হয়ে যাচ্ছেন ডাকসুতে।

ভিপি পদে নূর পেয়েছেন ১১ হাজার ৬২ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ছাত্রলীগের সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন পেয়েছেন ৯ হাজার ১২৯ ভোট।

সোমবার ভোটগ্রহণের সময় রোকেয়া হলে নূরের উপর ছাত্রলীগ হামলা চালায় বলে অভিযোগ উঠেছে। দুপুরের ওই ঘটনায় আহত হন এই ভিপি প্রার্থী; যদিও এই ঘটনাকে ‘নাটক’ বলেছেন ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী।

জিএস পদে ছাত্রলীগের রাব্বানীই ১০ হাজার ৪৮৪ ভোট হয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের রাশেদ খান পেয়েছেন ৬ হাজার ৬৩ ভোট।

এজিএস পদে জয়ী হয়েছেন ছাত্রলীগের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন ১৫ হাজার ৩০১ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের ফারুক হোসেন পেয়েছেন ৫ হাজার ৮৯৬ ভোট।

রাত সাড়ে ৩টার পর সিনেট ভবনে ভিসি ও ডাকসুর সভাপতি অধ্যাপক আখতারুজ্জামান যখন বিজয়ীদের নাম ঘোষণা করছিলেন, তখন সেখানে ছাত্রলীগের ভিপিপ্রার্থী শোভনসহ অন্যরা উপস্থিত ছিলেন।

ভিপি পদে নূরের নাম বিজয়ী হিসেবে ঘোষণার সঙ্গে সঙ্গে হৈ চৈ শুরু করেন, তারা ভিপি পদের ফল না মানার ঘোষণা দিয়ে শিক্ষক লাঞ্ছনা ও ব্যালট ছিনতাইকারীয়ের জন্য নূরকে দায়ী করে তাকে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিষ্কারের দাবি জানান।

রাব্বানী বলেন, “সাধারণ শিক্ষার্থীদের ইমোশনকে ব্যবহার করে রোকেয়া হলের প্রভোস্টের উপর হামলা চালিয়েছে। সাধারণ শিক্ষার্থীরা মামলা করেছে। আমরা ব্যবস্থা নেয়ার দাবি জানাই।”

নূরকে ইসলামী ছাত্রশিবির সংশ্লিষ্ট দাবি করেও স্লোগান তোলেন ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) ২৫টি পদের ২৩টিতে ছাত্রলীগের প্যানেলের (সম্মিলিত শিক্ষার্থী পরিষদ) প্রার্থীরাই জয়ী হয়েছেন।

ভিপির পাশাপাশি সমাজসেবা সম্পাদক পদে সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের আখতার হোসেন জয়ী হয়েছেন।

ছাত্রলীগের প্যানেল থেকে বিজয়ী অন্যরা

মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক- সাদ বিন কাদের

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সম্পাদক- আরিফ ইবনে আলী

কমনরুম ও ক্যাফেটেরিয়া সম্পাদক- বিএম লিপি আক্তার

আন্তর্জাতিক সম্পাদক- শাহরিমা তানজিনা অর্নি

সাহিত্য সম্পাদক- মাজহারুল কবির শয়ন

সাংস্কৃতিক সম্পাদক- শামস ই নোমান

ক্রীড়া সম্পাদক- শাকিল আহমেদ তানভীর

ছাত্র পরিবহন সম্পাদক- রাকিব হাওলাদার

সদস্য

চিবল সাংমা, নজরুল ইসলাম, রাকিবুল হাসান, রাকিবুল ইসলাম ঐতিহ্য, তানভীর হাসান সৈকত, রাইসা নাসের, সাবরিনা ইতি, ইশাত কাশফিয়া ইরা, নিপু ইসলাম তন্বী, হাইদার মোহাম্মদ জিতু, তিলোত্তমা শিকদার, জুলফিকার আলম রাসেল ও মাহমুদুল হাসান।

এই নির্বাচনে ভোটগ্রহণ শেষ হওয়ার আগে অধিকাংশ প্রার্থীর সঙ্গে নূরুল হক নূরের প্যানেলও নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দিয়েছিল।

ছাত্রদল, বাম জোট ও স্বতন্ত্র প্যানেলের প্রার্থীরা ব্যাপক কারচুপির অভিযোগ তোলেন। আগে থেকে ব্যালট বাক্স ভর্তি করা হয়েছিল বলে তাদের অভিযোগ, ছাত্রলীগের বিরুদ্ধে ভোটারদের বাধা দেওয়া অভিযোগও তুলেছেন।

এই নির্বাচন বাতিলের দাবিতে ভিসি ভবন ও কার্যালয়ের সামনে বিক্ষোভের পর ভোট বর্জনকারীদের পক্ষে মঙ্গলবার বিক্ষোভের ডাক দিয়েছেন বাম জোটের ভিপি প্রার্থী ছাত্র ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক লিটন নন্দী।

বিভিন্ন অনিয়মের চিত্র তুল ধরে নতুন নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার আহ্বান জানিয়েছেন নিজস্ব উদ্যোগে নির্বাচন পর্যবেক্ষণকারী আটজন শিক্ষকও।

অন্যদিকে ছাত্রলীগ নেতারা দাবি করেছেন, নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে এবং তাদের ঠেকাতে ছাত্রদলসহ অন্য প্যানেলগুলো পরিকল্পিতভাবে ‘নাটক’ সাজিয়েছে।

বিচ্ছিন্ন দুই-একটি ঘটনা ছাড়া সুষ্ঠু ও উৎসবমুখর নির্বাচন হয়েছে বলে উপাচার্য অধ্যাপক আখতারুজ্জামান দাবি করলেও এই নির্বাচনের প্রধান রিটার্নিং কর্মকর্তা অধ্যাপক মাহফুজুর রহমান কুয়েত মৈত্রী হলের ঘটনায় ‘বিব্রত ও ভাষাহীন’ হওয়ার কথা বলেছেন।

৪৩ হাজার ভোটারের জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৮টি হলে স্থাপিত কেন্দ্রে সকাল ৮টায় ভোটগ্রহণ শুরুর কথা থাকলেও কুয়েত মৈত্রী হলে ভোট দেওয়া বস্তাভরতি ব্যালট পেপার উদ্ধার হওয়ায় এবং রোকেয়া হলে ব্যালট বাক্স নিয়ে শিক্ষার্থীদের সন্দেহে ভোটগ্রহণ শুরু হয়নি নির্দিষ্ট সময়। পরে ওই দুই ছাত্রী হলে দেরিতে শুরু হয়ে ভোটগ্রহণ চলে সন্ধ্যা পর্যন্ত।

ডাকসুর ২৫টি পদের পাশাপাশি হল ছাত্র সংসদের ১৩টি পদে নিজেদের প্রতিনিধি নির্বাচনে ভোট দেন শিক্ষার্থীরা।

ভোটগ্রহণের পর গণনা শেষে হল সংসদগুলোর ফল হলেই ঘোষণা করেন রিটার্নিং কর্মকর্তারা।

সব হল থেকে ফলাফল পৌঁছনোর পর কেন্দ্রীয় সংসদ অর্থাৎ ডাকসুর ফল ঘোষণা করা হয় নওয়াব আলী চৌধুরী সিনেট ভবন থেকে। ভিসি বলেন, তিনি প্রধান রিটার্নিং কর্মকর্তার তৈরি করা ফলাফল উপস্থাপন করছেন।

এই নির্বাচনে বিভিন্ন রাজনৈতিক ছাত্র সংগঠনের প্যানেল থাকলেও ছাত্রলীগের সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ছিল নির্দলীয় ছাত্রদের প্যানেলের প্রার্থীরা; যা আগে কখনও দেখা যায়নি।

স্বাধিকার স্বতন্ত্র পরিষদ, স্বতন্ত্র জোট নামে স্বতন্ত্র প্রার্থীরা দুটি জোট করে এবার নামে ভোটের লড়াইয়ে। কোটা সংস্কারের আন্দোলনকারী সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদও দেয় পূর্ণ প্যানেল।

সংগঠনগুলোর মধ্যে ছাত্রদল, বাম জোট, জাসদ ছাত্রলীগ, ছাত্রলীগ-বিসিএল, বাংলাদেশ ছাত্র মৈত্রী, ইশা ছাত্র আন্দোলন, সাংস্কৃতিক মুক্তিজোট ও ছাত্র সমাজের পূর্ণ প্যানেল ছিল।

মোট ১২টি প্যানেলের বাইরেও ভিপি পদে ৯ জন এবং জিএস পদে ২ জন স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ছিলেন। ভিপি পদে মোট প্রার্থী ছিলেন ২১ জন; জিএস পদে ১৪ জন এবং এজিএস পদে ১৩ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন।

সব মিলিয়ে ডাকসুতে ২৫ পদের বিপরীতে প্রার্থী ছিলেন ২২৯ জন; ১৮টি হল সংসদে ১৩টি করে ২৩৪টি পদের বিপরীতে ৫০৯ জন নেমেছিলেন ভোটের লড়াইয়ে।

নিউজটি শেয়ার করতে নিচের বাটনগুলোতে চাপ দিন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও সংবাদ
Mymensingh-IT-Park-Advert
Advert-370
Advert mymensingh live
©MymensinghLive
প্রযুক্তি সহায়তা: ময়মনসিংহ আইটি পার্ক