ট্রাম্পের শান্তি পরিকল্পনার নিন্দা জানিয়ে জাতিসঙ্ঘে খসড়া প্রস্তাব

যুক্তরাষ্ট্রে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্র্রাম্পের ইসরাইলপন্থী কথিত শান্তি পরিকল্পনার তিরস্কার করে জাতিসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদের একটি খসড়া প্রস্তাবে পশ্চিম তীরে ইহুদি বসতি পুনরায় সংযুক্ত করার ইসরাইলি পরিকল্পনার নিন্দা জানানো হয়েছে। আপাতদৃষ্টিতে যুক্তরাষ্ট্রের ভেটোর সম্মুখীন হওয়ার সম্ভাবনা সত্ত্বেও খসড়াটিতে শান্তি পরিকল্পনা নিয়ে কিছু সদস্য রাষ্ট্রের অস্পষ্ট দৃষ্টিভঙ্গির বিষয়টি তুলে ধরা হয়েছে। খসড়ার অনুলিপি নিরাপত্তা পরিষদের সদস্যদের কাছে তুলে ধরেছে তিউনিসিয়া ও ইন্দোনেশিয়া।

কূটনীতিকরা বলেছেন, খসড়ার বিষয়ে আলোচনা সম্ভবত এই সপ্তাহের শেষে শুরু হবে। ফিলিস্তিনের প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাস খসড়ার বিষয়ে ভোটাভুটির ফলাফলের ভিত্তিতে শান্তি পরিকল্পনা নিয়ে আগামী সপ্তাহে পরিষদের সাথে কথা বলবেন বলে আশা করা হচ্ছে। প্রস্তাবটিতে দখলকৃত ফিলিস্তিন ভূখণ্ডের যেকোনো অংশকে দখল করার অবৈধতার উপর গুরুত্বারোপ করা হয়েছে এবং এই অঞ্চলটিকে আত্মসাতের আহ্বান জানিয়ে ইসরাইলের সাম্প্রতিক বক্তব্যের নিন্দা জানানো হয়েছে।

এ দিকে ডোনাল্ড ট্রাম্পের কথিত ‘ডিল অব দ্য সেঞ্চুরি’ বা শতাব্দীর সেরা চুক্তিকে প্রত্যাখ্যান করেছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ)। গত মঙ্গলবার ইউরোপীয় ইউনিয়নের পররাষ্ট্রনীতি বিষয়ক প্রধান কর্মকর্তা জোসেপ বোরেল বিবৃতির মাধ্যমে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, ইইউ মনে করছে ট্রাম্পের এ উদ্যোগের ফলে চলমান ইসরাইল-ফিলিস্তিন দ্বন্দ্বের শান্তিপূর্ণ সমাধানের উদ্যোগটি আন্তর্জাতিক মাপকাঠি থেকে বেরিয়ে যাচ্ছে। তাই বিষয়টি প্রত্যাখ্যান করে আগের অবস্থানে ফিরে যাওয়াই উত্তম।

ইইউর এই কর্মকর্তার মতে, ন্যায়বিচার ও স্থায়ী শান্তি প্রতিষ্ঠার জন্য উভয়পক্ষকে আলোচনার মাধ্যমে অমীমাংসিত ইস্যুগুলোর চূড়ান্ত সমাধান করতে হবে। বিশেষ করে সীমান্ত পরিস্থিতি, জেরুসালেম ইস্যু এবং শরণার্থী সম্পর্কিত বিষয়গুলো নিয়ে আলোচনা প্রয়োজন।

গাজায় ইসরাইলের বিমান হামলা

এএফপি জানায়, ইসরাইল গতকাল বুধবার গাজায় হামাসের বিভিন্ন অবস্থানে বিমান হামলা চালিয়েছে। ফিলিস্তিন থেকে রকেট ও বিস্ফোরকভর্তি বেলুন হামলার জবাবে এ হামলা চালানো হয় বলে দাবি করা হয়েছে।

সামরিক বাহিনীর এক বিবৃতিতে বলা হয়, গাজা উপত্যকার দক্ষিণাঞ্চলে হামাসের বিভিন্ন অবস্থান লক্ষ্য করে ইসরাইল এ বিমান হামলা চালায়। এসবের মধ্যে হামাসের অস্ত্র তৈরির একটি কারখানা রয়েছে। গাজায় এসব হামলায় তাৎক্ষণিকভাবে হতাহতের কোনো খবর পাওয়া যায়নি। ইসরাইল জানায়, বিমান হামলার আগে গাজা থেকে ইসরাইলের দক্ষিণাঞ্চলে তিনটি রকেট ও বিস্ফোরকভর্তি অনেক বেলুন হামলা চালানো হয়। এসব হামলায় হাসপাতাল ও পুলিশ কোনো সূত্র থেকেই হতাহত বা ক্ষতির কোনো খবর পাওয়া যায়নি। ইসরাইল ও ফিলিস্তিনের দীর্ঘ দিনের সঙ্ঘাত নিরসনে গত সপ্তাহে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প তার পরিকল্পনা ঘোষণা করেছেন। চরম পক্ষপাতিত্বমূলক হওয়ায় মার্কিন পরিকল্পনা পুরোপুরিই প্রত্যাখ্যান করেছে ফিলিস্তিনিরা। সূত্র : রয়টার্স ও আনাদলু।

Share this post

scroll to top