চোর ধরতে গিয়ে কোয়ারেন্টাইনে ১৭ পুলিশ, বিচারক

চুরি বিদ্যায় এবার করোনাভাইরাসের থাবা। এবার গাড়ি চোরের শরীরে করোনাভাইরাসের উপস্থিতি মিলল। আর তা নিয়ে জোর শোরগোল পড়ে গিয়েছে। ঘটনাস্থল ভারতের ক্যাপ্টেন অমরিন্দর সিংয়ের পাঞ্জাব। কীভাবে ওই চোর করোনায় আক্রান্ত হয়েছে সেটা খুঁজে বের করাই এখন বড় চ্যালেঞ্জ। কিন্তু আশ্চর্য বিষয় হলো, এই চোরের পরিবার, তার সংস্পর্শে আসা ১৭ জন পুলিশকর্মী, পুলিশকে সাহায্য করা দুই যুবক আর বিচারকসহ আদালতের কর্মীদের কোয়ারেন্টাইনে পাঠানো হয়েছে। ফলে সবার চক্ষু এখন চড়কগাছ!‌

পুলিশ সূত্রে খবর, গত ৫ এপ্রিল গাড়ি চুরির অভিযোগে সৌরভ সেহগল নামক ২৫ বছরের ওই চোরকে গ্রেফতার করে পুলিশ। এক দিনের জন্য জেলে ঢুকিয়ে ৬ এপ্রিল তাকে আদালতে পেশ করা হয়। আর আদালতকক্ষে কাশতে শুরু করে দেয় চোর সৌরভ। তার হালকা জ্বরও ছিল। বিচারক ঝুঁকি না নিয়ে তাকে আগে চিকিৎসকের কাছে পাঠানোর নির্দেশ দেন। চিকিৎসকের সন্দেহ হওয়ায় তাকে করোনার পরীক্ষা করাতে বলেন। আর পরীক্ষা করে দেখা যায় রিপোর্ট পজিটিভ।

এদিকে পুলিশের মাথাব্যাথার কারণ হয়ে দাঁড়ায় সৌরভের সঙ্গী নভজ্যোৎ। সৌরভের করোনা ধরা পড়ার পর নভজ্যোতেরও করোনা পরীক্ষায় উদ্যোগী হয় পুলিশ। তখন ওর হাতকড়া খুলতেই পুলিশকে ধাক্কা দিয়ে পালিয়ে যায় সে। অন্যদিকে আপাতত সৌরভের সংস্পর্শে আসা ১৭ পুলিশকর্মীকে কোয়ারেন্টাইন করা হয়েছে। তিন এএসআই, দু’জন হেড কনস্টেবল, দু’জন কনস্টেবল, দু’জন হোমগার্ড এখন কোয়ারেন্টাইনে।

সৌরভ কার বাড়িতে চুরি করতে গিয়ে করোনা ধরিয়েছে, তার পর কার কার বাড়িতে গেছে, সেটাই ভাবাচ্ছে প্রশাসনকে।
সূত্র : আজকাল

Share this post

scroll to top